দৃষ্টান্তবাদী দৃষ্টিতে কবিতার সৌন্দর্যোপভোগযাত্রা

লেখক : সবুজ তাপস

দ্বিতীয় পর্ব : সৌন্দর্য, শব্দ, ছন্দ …

কবিতা হচ্ছে অর্থপূর্ণ শব্দসহযোগে তাৎপর্যপূর্ণ বাক্যের মাধ্যমে সৃষ্ট অভিঘাত। এমন অভিঘাত যা পাঠককে কিছুটা হলেও পুলকিত অথবা পরিশ্রুত কিংবা মুগ্ধ করে। বক্তব্যটি, গদ্যকার খালেদ হামিদীর, আমার খুব ভালো লেগেছে। এতে দৃষ্টান্তবাদের সমর্থন রয়েছে। এজন্যে যে, এ-মতানুসারে, যার দৃষ্টান্ত রয়েছে তা-ই অর্থপূর্ণ এবং তার সহযোগেই রচিত হতে পারে তাৎপর্যপূর্ণ বাক্য। এই যে বক্তব্য, এর অপ্রত্য উল্লেখ চার্বাক দর্শনেও রয়েছে। চার্বাকরা অধ্যাত্মবাদী মতের বিরোধিতা করতে গিয়ে এ-জাতীয় বক্তব্য পেশ করেছেন। অধ্যাত্মবাদীরা বলেন, বস্তুকে নিয়ে কৃত শব্দই (word) বস্তুর অস্তিত্বের প্রমাণ দেয়। এ-হিসেবে অদৃশ্য বস্তুকে চিহ্নিত করতে আমরা যে-শব্দ ব্যবহার করি, তা তার অস্তিত্বের প্রমাণ। এ-কথার বিরোধিতা করে চার্বাকরা বলেন, অদৃশ্য বস্তুকে আমরা যে-শব্দে উপস্থাপন করি, তা তার প্রমাণ হতেই পারে না। এটাকে অনুমান বলা যেতে পারে। অনুমান (Inference) প্রমাণ নয়, এ-হিসেবে অনুমান-নির্ভর শব্দ বা বাক্য বস্তুর অস্তিত্বের যথার্থ প্রমাণ হতে পারে না, প্রত্যক্ষই (Perception) বস্তুর একমাত্র প্রমাণ। তো অনুমান-নির্ভর নয়, প্রত্যক্ষগ্রাহ্য বস্তু সম্পর্কে আমরা যে-শব্দ ব্যবহার করি তা-ই অর্থপূর্ণ এবং এ-জাতীয় অর্থপূর্ণ শব্দের সমবায়েই নির্মিত হতে পারে তাৎপর্যপূর্ণ বাক্য। কবিতার প্রতিবেশী ২-এ খালেদ হামিদী এ-কথাও উল্লেখ করেছেন : কবিতা সেই রচনা যা পাঠমগ্ন কাউকে ‘বাহ!’ বা ‘আহ!’ কিংবা ‘চমৎকার!’ অথবা ‘অসাধারণ!’ বলতে বাধ্য করে, সেই রচনাও যা ঐ-তাকে নির্বাক করে হয় এক অনির্বচনীয় আনন্দে না-হয় এক সুন্দর বেদনায় সিক্ত করে তোলে। তার এ-বক্তব্যের অযাথার্থ্যও রয়েছে, বলছি এজন্য যে, ‘আহ!, বাহ!’ জাতীয় শব্দগুলোর উচ্চারণ এবং ‘অনির্বচনীয় আনন্দ’ কিংবা ‘সুন্দর বেদনা’ লাভের ব্যাপার তো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোটগল্পগুলো পাঠের পরও ঘটে থাকে! কবিতা হল কবিমনের অনুভব, এতে কবির অভিজ্ঞতার ছবি থাকে। পাঠকের মনে তখনই কবির অনুভবের সম্প্রসারণ ঘটে, যখন কবিদৃষ্টিকে পাঠক আপন অন্তর্দৃষ্টি মনে করে। কবিতা তখনই স্থায়ী হয় – সঞ্চারী হয়, পাঠককে মাতায় যখন কবির চয়িত ছবি, অভিজ্ঞতার খণ্ডাংশ, ব্যক্তিগত জীবনের সুখ-দুঃখ-আনন্দানুভূতি পাঠকের ঐসবের সমরূপ হয়। সে যা-ই হোক, এ-পর্বে কবিতার সংজ্ঞা হাজির না করে এর সৌন্দর্য এবং সৌন্দর্যোপভোগে শব্দ, ছন্দ… ইত্যাদির সহযোগিতা রয়েছে কি না তার সম্পর্কে যৎসামান্য বক্তব্য হাজির করা যাক।

(চলমান)

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

w

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close